পুষ্পেন চৌধুরী, লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম): ছেলে বলেছিলো কোরবানের সময় বাড়ী আসবে। আমরা আশায় আশায় দিন গুনছি। সে বাড়ী ফিরবে। কিন্তু এ ঘটনা হওযার পর থেকে এক মুহূর্ত আমরা শান্তিতে নেই। আসিফ আমাদের ছোট ছেলে। তার মায়ের শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। সারাদিন ছেলের জন্য মায়ের কান্নাকাটি চলছে। আমাদের জন্য দোয়া করবেন। ছেলেটাকে যেন সুস্থভাবে ফিরে পাই। আবেগঘন কথাগুলো বলছিলেন নাবিক আসিফুর রহমানের পিতা আকতার হোসেন।

            আসিফ চট্টগ্রামের মেরিন একাডেমিতে কর্মরত আছেন। আসিফুর রহমানের বাড়ী চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়া ইউনিয়নের দেওয়ান পাড়ায়। আসিফের পিতা আক্তার হোসেন বলেন, আমার দুই ছেলে নাবিক হিসেবে কর্মরত আছেন। কিন্তু এরকম পরিস্থিতির শিকার হবো কখনও বুঝতে পারিনি। আমাদের অভিযোগ হলো, সোমালিয়া উপকূল পার হবার সময় প্রত্যেক জাহাজ কর্তৃপক্ষ নিজ উদ্যোগে সশস্ত্র গার্ড নিয়ে থাকে। কিন্তু কেএসআরএম কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে জাহাজে কোন ধরণের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়নি।

            লোহাগাড়ার বড়হাতিয়া এলাকার আসিফুর রহমানের চাচা মাষ্টার নাসির উদ্দিন বলেন, আসিফকে নিয়ে আমাদের গ্রামের প্রত্যেক মানুষ উৎকন্ঠার মধ্যে আছে। সরকার এবং কেএসআরএম কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ রইলো যাতে দ্রুত বিষয়টি সমাধান করে নাবিকদের সুস্থভাবে উদ্ধার করে পরিবারের মাঝে ফিরিয়ে দেন।

            উল্লেখ্য, চট্টগ্রামের কবির গ্রুপের মালিকানাধীন এমভি আবদুল্লাহ গত মঙ্গলবার মোজাম্বিকের মাপুতু বন্দর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাওয়ার পথে জাহাজটির নিয়ন্ত্রণ নেন সোমালিয়ায় জলদস্যুরা। জাহাজটিতে ৫৫ হাজার টন কয়লা রয়েছে। জাহাজে থাকা ২৩ জন নাবিকের সবাই বাংলাদেশী।

খবরটি 346 বার পঠিত হয়েছে


আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Follow us on Facebookschliessen
oeffnen