জাতীয় ডেস্ক: দ্বাদশ জাতীয় সংসদে প্রথম অধিবেশন শুরু। নিয়ম অনুযায়ী জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের শুরুতে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করা হয়। প্রথম অধিবেশন টানা চতুর্থবারের মত জাতীয় সংসদের বর্তমান স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে স্পিকার নির্বাচন করা হয়েছে। এছাড়া বর্তমান ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুকে আবারও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করা হয়। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) বিকাল ৩ টায় একাদশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে দ্বাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। দ্বাদশ জাতীয় সংসদের নবনির্বাচিত স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী ও ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুকে জাতীয় সংসদ ভবন কার্যালয়ে শপথবাক্য পাঠ করান রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

            এর আগে সংসদনেতা নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা। সংসদ সদস্য মতিয়া চৌধুরী দায়িত্ব পেয়েছেন সংসদ উপনেতা। সংসদ সদস্য নূর-ই-আলম চৌধুরী জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ দায়িত্ব পেয়েছেন। সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম, সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল ও নজরুল ইসলাম বাবু জাতীয় সংসদের হুইপ দায়িত্ব পেয়েছেন।

            একাদশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে দ্বাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। নিয়ম অনুযায়ী অধিবেশনের শুরুতে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করা হয়। সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর নাম প্রস্তাব করেন। চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী লিটন এ প্রস্তাবকে সমর্থন করেন। পরে কণ্ঠভোটে স্পিকার নির্বাচিত হন। ডেপুটি স্পিকার এ সময় সর্বসম্মতক্রমে ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় শিরীন শারমিন চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছে ঘোষণা করেন। এরপর সংসদ ২০ মিনিটের জন্য সংসদ মুলতবি করা হয়। এ সময় সংসদ ভবনে রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন নতুন স্পিকারের শপথ পড়ান। পরে শিরীন শারমিন অধিবেশনে এসে ডেপুটি স্পিকার নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু করেন। ডেপুটি স্পিকার পদে শামসুল হক টুকুর নাম প্রস্তাব করেন হুইপ এবি তাজুল ইসলাম ও সমর্থন করেন মকবুল হোসেন। প্রস্তাবটি ভোটে দিলে সংসদ সদস্যরা ‘হ্যাঁ’ বলে সমর্থন জানান। পরে ডেপুটি স্পিকারকে শপথ পড়ান রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন।

            নবম সংসদের শেষ দিকে জিল্লুর রহমানের মৃত্যুর পর আবদুল হামিদ রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলে শূন্য হয় স্পিকারের আসন। সে স্থানে আসেন সংসদ সদস্য শিরীন শারমিন। সেবার প্রথম বারের মতো আইনসভায় এসে চার বছরের অভিজ্ঞতাকে পুঁজি করে সংসদ প্রধানের পদে বসেন শিরীন শারমিন। আর এ পদে তিনি প্রথম নারী। নবম সংসদে সংরক্ষিত আসনে নির্বাচিত হয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছিলেন শিরীন শারমিন।

            ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে পৈত্রিক এলাকা নোয়াখালীর চাটখিল আসনে সরাসরি অংশ নিতে চাইলে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি শিরীন শারমিন। এরপর সংরক্ষিত মহিলা আসন থেকে সংসদে যেতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান তিনি। এ সময় শেখ হাসিনা রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসনটি ছেড়ে দিয়ে সেখানে উপনির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী করেন শিরীন শারমিনকে। উপনির্বাচনে আর কেউ প্রার্থী না হওয়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন শিরীন শারমিন। এরপর একাদশ ও দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে রংপুর-৬ আসন থেকে নির্বাচিত হন শিরীন শারমিন। প্রতিবার ভোটে জয়ের পর তাকে স্পিকারের দায়িত্বে এনেছে আওয়ামী লীগ। পেশায় আইনজীবী শিরীন শারমিনের জন্ম ১৯৬৬ সালে ৬ অক্টোবর ঢাকায়। তার বাবা রফিকউল্লাহ চৌধুরী ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একান্ত সচিব। মা অধ্যাপক নাইয়ার সুলতানা বাংলাদেশ কর্ম কমিশনের সদস্য ছিলেন।

খবরটি 344 বার পঠিত হয়েছে


আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Follow us on Facebookschliessen
oeffnen