আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় অত্যাধিক বোমা হামলার পর সেখানে প্রবেশ করেছে ইসরায়েলি সেনারা। গাজার ভেতর যাওয়া এ সব সেনা সঙ্গে করে নিয়ে গেছে ট্যাংক এবং অন্যান্য সাঁজোয়া যান। এরপর এ সব ট্যাংক দিয়ে সেখানে স্বল্পমাত্রার স্থল হামলা শুরু করে তারা। এ সময় ইসরায়েলি বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে লিপ্ত হয় ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস। শনিবার (২৮ অক্টো বর) এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান। রাতব্যাপী চালানো হামলায় কয়েকশ ভবন এবং বাড়ি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে এবং কয়েক হাজার বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ তীব্র বোমা হামলা গাজার চিত্র পাল্টে দিয়েছে।

            অপরদিকে হামাসের সাথে যুদ্ধে ফিলিস্তিনের সমর্থনে ইরান সমর্থিত লেবাননের সশস্ত্রগোষ্ঠী হিজবুল্লাহ ইসরায়েলি ভূখণ্ডে রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে। এর আগে শুক্রবার ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণাধীন বিতর্কিত শেবা খামার এলাকায় ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর অবস্থানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার দাবি করে হিজবুল্লাহ। শেবা খামার ছাড়া এর আশপাশের কয়েকটি এলাকায় হিজবুল্লাহর হামলা হয়েছে। ফিলিস্তিন হামাস ইসরায়েল যুদ্ধের শুরু থেকে ফিলিস্তিনিদের সমর্থনে ইসরায়েলের উত্তরাঞ্চলে রকেট, ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন হামলা চালিয়ে আসছে লেবাননের সশস্ত্রগোষ্ঠী হিজবুল্লাহ। হিজবুল্লাহর হামলায় ইসরায়েলে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজনের প্রাণহানি ঘটেছে। নিহতদের মধ্যে ইসরায়েলি আমেরিকান এক সৈন্য আছে। ইসরায়েলের উত্তরাঞ্চলের প্রতিবেশী লেবানন থেকে হিজবুল্লাহ সতর্ক করে দিয়ে বলছে, গাজায় অবিলম্বে ইসরায়েলি আগ্রাসন বন্ধ এবং স্থল হামলার পরিকল্পনা বাতিল না করা হলে ইসরায়েলে নজিরবিহীন আক্রমণ চালাবে তারা। এমনকি ইসরায়েলের দিকে হিজবুল্লাহর দেড় লাখ রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্র তাক করা আছে এ সতর্ক করে দিয়েছে বিশ্বের শক্তিশালী সশস্ত্র এ গোষ্ঠীটি।

            গত ৭ অক্টোবর গাজার উত্তরাঞ্চলীয় সীমান্ত ইরেজ ক্রসিংয়ে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ইসরায়েলের ভূখণ্ডে প্রবেশ করে কয়েক শ প্রশিক্ষিত হামাস যোদ্ধা। ঢোকার পর সেখানে কয়েকশ বেসামরিক মানুষকে হত্যার পাশাপাশি ২২০ জন ইসরায়েলি ও অন্যান্য দেশের নাগরিকদের জিম্মি করে ধরে নিয়ে যায় হামাস। এ হামলার পর সেদিন থেকে ফিলিস্তিন গাজায় বিমান অভিযান পরিচালনা শুরু করে ইসরায়েলের বিমান বাহিনী, যা এখন চলছে। গত ২০ দিনের এ যুদ্ধে ইসরায়েলে নিহত হয়েছেন ১ হাজার ৪০০ জন ইসরায়েলি ও অন্যান্য দেশের নাগরিক এবং ফিলিস্তিন গাজায় নিহতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৭ হাজার।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান, সিএনএন, টাইমস অব ইসরায়েল

খবরটি 548 বার পঠিত হয়েছে


আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Follow us on Facebookschliessen
oeffnen